"> আপনার নবজাতক শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশ আপনার নবজাতক শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশ – Dailyajkersangbad

বুধবার, ১২ অগাস্ট ২০২০, ০৩:১১ পূর্বাহ্ন

আপনার নবজাতক শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশ

আপনার নবজাতক শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশ

স্বাস্থ্য ডেস্ক: জন্মের প্রথম কয়েক মাস আপনার বাচ্চার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যখন তার অধিকাংশ পেশী, জ্ঞানীয়, চলাফেরা এবং অন্যান্য দক্ষতার বিকাশ শুরু হয়। এই পর্যায়ে আপনার শিশুর বিকাশের উপর যদি আপনি নজর রাখতে চান তবে, আপনার বাচ্চার বিকাশের লক্ষণগুলি বোঝা জরুরী যা নির্দেশ করে আপনার বাচ্চার যতটা বেড়ে ওঠার কথা সে ততটাই বাড়ছে।

 

বৃদ্ধি একটি শিশুর

প্রথম মাসে, আপনার নবজাতক বেশ কয়েকটি পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায় যা তার শারীরিক, বোধবুদ্ধি সংক্রান্ত, মানসিক বিকাশ, ভাষা, সেইসাথে সংবেদনশীলতা এবং অঙ্গসঞ্চালন বিষয়ক বিকাশের ভিত্তি স্থাপন করে। আপনার এটা জানা জরুরী যে, জন্মের প্রথম কিছুদিনের মধ্যে আপনার সদ্যোজাত বাচ্চার কিছুটা ওজন কমবে, অতিরিক্ত পরিমাণ তরল হ্রাস পাওয়ার কারণে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে, সে এই ওজন ফিরে পাবে। এমনকি আপনি প্রথম মাসের প্রতি সপ্তাহে আপনার শিশুর 113 গ্রা: থেকে 227 গ্রা: ওজন বৃদ্ধি লক্ষ্য করতে পারেন।এর পাশাপাশি, তার মস্তিষ্কও দ্রুত বিকাশের মধ্য দিয়ে যায় এবং শীঘ্রই সেগুলি বিভিন্ন বিকাশের মাইলফলকগুলিতে পৌঁছে যাবে।

 

নবজাতকের বিকাশ – প্রথম সপ্তাহ

প্রথম সপ্তাহে আপনি লক্ষ্য করতে পারেন আপনার শিশু প্রচুর ঘুমোচ্ছে। এটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। তার হাত ও পা কুঞ্চিত দেখাতেও পারে। এটি গর্ভের মধ্যে যে অবস্থানে সে ছিল তার কারণে হয়। শিশু পরবর্তী কয়েক মাসে ধীরে ধীরে প্রসারিত হবে। আপনি তাকে স্বস্তি দিতে কাপড় দিয়ে জড়িয়ে রাখার চেষ্টা করতে পারেন। শিশু আচমকাই খুব জোরে জোরে কেঁদে উঠে আপনাকে সচকিত করতে পারে । এটিকে ‘মোরো রিফ্লেক্স‘ বলা হয়, যখন বাচ্চা পিছন দিকে বেঁকে গিয়ে তার হাত ও পা প্রসারিত করে দিতে পারে। এই রিফ্লেক্স কয়েক মাস পরে প্রশমিত হয়ে থাকে।

 

1 সপ্তাহ বয়সে শিশুর বিকাশ

সপ্তাহ বয়সে আপনার বাচ্চা তার সামনে মাত্র 8 থেকে 10 ইঞ্চি পর্যন্ত দেখতে পারে। তার মানে হল এই যে সে কেবল তখনই আপনার মুখ দেখতে পাবে যখন তা তার খুব কাছে আনা হবে। এমনকি সে আপনার মুখ চিনতে সক্ষম হতে পারে। বাচ্চারা নিকটস্থ দৃষ্টিশক্তির সাথে জন্ম নেয় এবং তাদের দৃষ্টি ধীরে ধীরে জন্মের পরে বিকশিত হয়। আপনি যদি লক্ষ্য করেন যে আপনার নবজাতক ট্যারা চোখে আপনার দিকে তাকাচ্ছে তবে তাতে চিন্তার কোনো কারণ নেই। প্রথম কয়েক মাস সাধারণভাবে শিশু খুবই অবাক দৃষ্টিতে তাকাবে।

প্রথম কয়েক দিন আপনি শিশুর মলে সবুজ রঙের মিশ্রণ লক্ষ্য করতে পারেন। এটি মেকোনিয়ামের কারণে হয় – যেটি হল ভ্রূণের মল। একবার এটি পরিষ্কার হয়ে গেলে, আপনার শিশুর মল হলুদ হয়ে যাবে।

 

2 সপ্তাহ বয়েসী শিশুর শারীরিক বিকাশ

 

আপনার সদ্যজাত শিশু কান্নাকাটি করে তার চাহিদাগুলি সম্বন্ধে জানান দেয়। এই সময়ে শিশুর সাথে কথা বলতে থাকুন, যাতে সে আপনার গলা চিনতে পারে। আপনার শিশু আপনার গলার স্বর চিনতে শুরু করতেও পারে কারণ তার শ্রবণশক্তির বিকাশ হয় এবং আপনার স্বর শোনার অপেক্ষায় থাকে। এই সময় বহু শিশুর মধ্যে পেটে ব্যাথা দেখা যায়। এই অবস্থায় শিশু অন্তত তিন সপ্তাহ ধরে সপ্তাহে 3 দিন 3 ঘন্টার বেশিক্ষণ ধরে কোনও কারণ ছাড়াই ক্রমাগত কাঁদতে থাকে। যদিও এতে চিন্তার কোন কারণ থাকে না এবং সাধারণত প্রায় তিন মাসের মধ্যে সমস্যাগুলি হ্রাস পায় তবুও আপনি আপনার পেটে ব্যাথায় কাঁদে এমন শিশুর সাথে কীভাবে আচরণ করবেন সে সম্পর্কে পরামর্শের জন্য একজন ডাক্তারের সাথে কথা বলতে পারেন। আপনার শিশুর আম্বিলিকাল কর্ডটি দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে শুকিয়ে গিয়ে খসে পড়ে যাবে এবং একটি সুন্দর স্বাভাবিক নাভি রেখে যাবে। আপনার শিশুর আম্বিলিকাল কর্ড খসে পড়ে না যাওয়া পর্যন্ত সংলগ্ন অংশ শুকনো রাখতে তাকে স্পঞ্জবাথ দেওয়াই ঠিক হবে।

 

3 সপ্তাহ বয়সের শিশুর বিকাশ

তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে, আপনি লক্ষ্য করতে পারেন যে আপনার বাচ্চা তার পেটের উপর ভর দিয়ে কয়েক মুহূর্তের জন্য মাথা উঁচু করার চেষ্টা করছে। আপনার শিশুর ঘাড়ের পেশীর বিকাশে সাহায্য করার জন্য শিশু জাগ্রত থাকা অবস্থায় আপনি তাকে যথেষ্ট সময় ধরে উপুড় করে রাখুন। আপনার শিশু যখন উপুড় হয়ে থাকবে সেসময় আপনি অবশ্যই আপনার শিশুর ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যে থাকা নিশ্চিত করুন। আপনার শিশু উপুড় হয়ে থাকার সময় তাকে ঘুমাতে দেবেন না কারণ এটি হঠাৎ শিশু মৃত্যু সিন্ড্রোম (এসআইডিএস) এর ঝুঁকি বাড়ায়।

শিশুরা এই সময়ে চুষা নিয়ে ভুলে থাকতে পারে, তাই এই সময়কালে আপনার শিশুকে নিজে নিজে শান্ত হতে সহায়তা করার জন্য একটি চুষি একটি দুর্দান্ত হাতিয়ার হতে পারে। তার দৃষ্টি এবং দৃষ্টি কেন্দ্রীভূত করার ক্ষমতার উন্নতি হতে থাকবে এবং সে হয়তো গভীরভাবে আপনার মুখের দিকে তাকাতে সক্ষম হবে। আপনি এই সময়ে তার কাছে এক ঝলক হাসিও প্রত্যাশা করতে পারেন। এটি সামাজিক প্রতিক্রিয়ার পরিবর্তে আপনার হাসির একটি অনুকরণ।

 

4 সপ্তাহ বয়সের শিশুর বিকাশ

আপনার 4 সপ্তাহ বয়সী শিশুটির বিকাশের মধ্যে শ্রবণশক্তির উন্নতিও অন্তর্ভুক্ত। এর মানে হল আপনার শিশু গান শুনতে এবং শব্দগুলিকে আরও ভালোভাবে খেয়াল করতে পারবে। কিছুটা উন্নতি হওয়া ঘাড়ের পেশী সাহায্যে সে বেশ কিছুক্ষণ তার মাথা তুলে থাকতে পারবে এমনকি এদিক ওদিক ফেরাতে বা ঘোরাতেও সক্ষম হতে পারে। আপনি তার সামনে দাঁড়িয়ে এই কাজটিতে আরও সাহায্য করতে পারেন ধীরে ধীরে একদিক থেকে অন্যদিকে সরে গিয়ে তা অনুসরণ করার জন্য উৎসাহিত করার মাধ্যমে।

শিশু ধীরে ধীরে তার হাত ও পা আবিষ্কার করবে এবং কান্না ছাড়াও কৌতুকজনক নানাবিধ শব্দ করে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা করবে। এই সময় আপনার বাচ্চার সাথে কথা বলুন এবং যতটা সম্ভব তার সাথে যোগাযোগ স্থাপণ করুন; এটা শিশুটিকে আরো স্বতন্ত্র শব্দের মাধ্যমে সাড়া দিতে উৎসাহিত করবে।

 

নবজাতকের বেড়ে ওঠার মাইলফলকগুলি

 

আপনার শিশুর বিকাশের মাইলফলকগুলি তার নতুন নূতন দক্ষতা অর্জনের ক্ষেত্রে এক একটি ভিত্তিস্থাপন করবে যা তার সামগ্রিক বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। তবে, এটাও মনে রাখা জরুরি যে সকল শিশুই একই সময়ে বা একই সাথে এই দক্ষতাগুলি অর্জন করতে পারে না। নির্ধারিত সময়ের পূর্বে জন্ম নেওয়া শিশু তাদের গর্ভাবস্থায় থাকার নির্ধারিত বয়স অনুযায়ী এই মাইলফলকগুলি অর্জন করবে।

এখানে কিছু মাইলফলক দেওয়া হল যা প্রথম মাসেই শিশুটি অর্জন করে থাকে।

  • যখন আপনার শিশুর পা কোন সমতল জায়গায় থাকবে, সে ঐ তলে তার পা দিয়ে ধাক্কা মেরে হাঁটার অনুকরণ করতে থাকবে।
  • শিশু তার থেকে আট থেকে দশ ইঞ্চি দূরে দৃষ্টি নিবদ্ধ করতে সক্ষম হবে।
  • আপনার শিশুর শোনার ক্ষমতা সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হবে এবং সে যে কোনো উচ্চ শব্দে সাড়া দেবে বা সচকিত হয়ে কেঁদে উঠবে।
    তার গন্ধের অনুভূতি তৈরী হতে থাকে এবং তার মিষ্টি এবং প্রীতিকর গন্ধের প্রতি ঝোঁক শুরু হয়।আপনার শিশুর অঙ্গসমূহের অমসৃণ আন্দোলন ধীরে ধীরে মসৃণ হবে।
  • সে আপনার কন্ঠস্বরের মত, কিছু শব্দ শনাক্ত করতে সক্ষম হতে পারে।
    সে হাত ও পায়ের অস্তিত্ব আবিষ্কার করতে শুরু করবে এবং তার মুখ ও চোখের কাছে আনতে চেষ্টা করবে।
  • ঘাড়ের পেশীগুলির শক্তিবৃদ্ধির সাথে সাথে, সে হয়তো তার মাথা একপাশ থেকে অন্যপাশে ফেরাতে সক্ষম হবে।

 

আচরণ

আপনার নবজাতক এই বিশ্ব কিভাবে চলছে তা বোঝার চেষ্টা শুরু করেছে। সে শুধু জানে যে কিছু প্রয়োজন হলে যোগাযোগ করতে তাকে কান্নাকাটি করতে হবে। আপনার বাচ্চা যদি কান্নাকাটি করে তবে তা বিভিন্ন কারণ হতে পারে যেমন ক্ষুধা , ডায়াপার পরিবর্তনের প্রয়োজন, আরামের প্রয়োজন, ইত্যাদি। আপনি যদি আপনার শিশুর কাঁদতে দেখেন, তাকে কোলে তুলুন এবং তাকে আদর দিন। এটি তাকে একটি আশ্বাস দেয় যে আপনি তার দিকে খেয়াল রাখছেন। যত তাড়াতাড়ি আপনি তাকে এই আদর দেবেন, তত তাড়াতাড়ি সে তার কান্না কমাবে। যেহেতু এই মুহূর্তে আপনার বাচ্চার যোগাযোগ স্থাপন করার একমাত্র মাধ্যম কান্না, তাই এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি এটির প্রতিক্রিয়া জানান এবং তার সাথে যোগাযোগ করুন। প্রতিবার যখন সে কাঁদে তখন তাকে আদর করলে তাকে নষ্ট করা হবে না।যাইহোক, যদি আপনার শিশু কোনো নির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই দীর্ঘ ঘন্টার জন্য কাঁদতে থাকে, তবে সে হয়তো পেটের ব্যাথায় ভুগছে। আপনি একটি পেটের ব্যথায় ভোগা শিশুকে শান্ত করার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি চেষ্টা করতে পারেন। যেমন ঘুমানোর সময়ও সে যেন কোনও আরামদায়ক জায়গায় থাকে তা নিশ্চিত করা, তাকে আস্তে আস্তে দোল খাওয়ানো, মধুর সঙ্গীত চালানো ইত্যাদি।

কিভাবে নবজাতক শিশুর যত্ন নেবেন

আপনার সন্তান সুরক্ষিত থাকতে আপনার উপর নির্ভর করে। এখানে কয়েকটি জিনিস বলা হল যা প্রথম মাসের নবজাতক শিশুর যত্নের অংশ

 

  • আপনার শিশুর বেশিরভাগ বিকাশই ঘটে যখন সে ঘুমায়। অতএব, আপনার শিশুকে যথেষ্ট বিশ্রাম পেতে সাহায্য করুন।
  • বুকের দুধ খাওয়ানোকে প্রাধান্য দিন। বুকের দুধ আপনার শিশুর শারীরিক ও জ্ঞানীয় বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় অত্যাবশ্যক পুষ্টি ধারণ করে।
  • আপনার শিশুর জন্য নরম এবং আরামদায়ক ডায়াপার ব্যবহার করুন। প্রতিবার মলমূত্র ত্যাগের পরে ডায়াপার পরিবর্তন করুন।
  • নাড়ী না পড়া পর্যন্ত সাবধানে আপনার শিশুকে স্পঞ্জ স্নান দিন। উষ্ণ জল দিয়ে নাড়ী পরিষ্কার করুন এবং নরম টয়লেট কাগজ দিয়ে শুকিয়ে নিন। একবার নাড়ী পড়ে গেলে, আপনি ঈষদুষ্ণ জল দিয়ে তাকে টবে স্নান করাতে পারেন।
  • আপনার শিশুর স্নানের জন্য শুধুমাত্র হাল্কা সাবান ব্যবহার করুন এবং সব প্রয়োজনীয় সতর্কতা অনুসরণ করুন।
  • কোনও সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে আপনার শিশুর যত্ন নেওয়ার আগে সর্বদা আপনার হাত ধুয়ে নিন।আপনার শিশুকে ধরার সময় তার ঘাড় এবং মাথায় ঠেকনা দিন সে এখনো সুগঠিত হয়নি এবং ঘাড়ে ও মাথায় অবলম্বনের অভাবে তার ঘাড়ের পেশীগুলিতে চাপ সৃষ্টি হতে পারে।
  • আপনার শিশুকে ধরুন। বাচ্চারা তাদের মায়ের স্পর্শে সান্ত্বনা পায়; আদর করা এবং তাদের কোলে তোলা তাদের শান্ত করার একটি দুর্দান্ত উপায়।
  • তাদের সাথে কথা বলুন। যদিও আপনার বাচ্চা আপনার কথা বুঝতে নাও পারে বা প্রতিক্রিয়া জানাতে নাও পারে তবুও আপনার বাচ্চার সাথে কথা বলা এবং যোগাযোগ করা তার সাথে বন্ধনের একটি দুর্দান্ত উপায়। এটা তাকে শুনতে এবং ভালভাবে স্বর চিনতে সাহায্য করতে পারে।

 

ক্রিয়াকলাপ যা আপনার নবজাতকের সঙ্গে করতে পারেন।

 

আপনার নবজাতক নতুন জিনিস শিখতে আপনার উপর নির্ভর করে এবং নিজের মনোরঞ্জন করে। এখানে কয়েকটি নবজাতক শিশুর ক্রিয়াকলাপ রয়েছে যা তাকে বিশ্বের সাথে পরিচয় করানোর এবং তার সাথে বন্ধন স্থাপনের দুর্দান্ত উপায় হতে পারে।

 

  • হেঁটে আসা : যখন আপনার বাচ্চার কয়েক সপ্তাহ বয়স হবে, আপনি পার্ক বা বাগানে অল্প হাঁটার জন্য তাকে স্ট্রলারে করে বাইরে নিয়ে যেতে শুরু করতে পারেন। এটা পরিবেশের পরিবর্তন হতে পারে এবং যা তাকে প্রত্যয়ী করে তুলবে।
  • গান বাজান : সঙ্গীত সার্বজনীনভাবে শিশুদের শান্ত করার জন্য পরিচিত। কিছু মধুর সুর বাজান যা তাকে নিশ্চিন্ত হতে এবং ঘুমোতে সাহায্য করতে পারে।
    ভাবের আদান প্রদান করুন : বিভিন্ন মজার অঙ্গভঙ্গি ব্যবহার করে আপনার বাচ্চার সাথে খেললে তাদের নিজেকে সনাক্ত করতে এবং ভাষা উন্নয়নের ভিত্তি তৈরি হতে সাহায্য করতে পারে।
  • লুকোচুরি খেলা : একটি তোয়ালে দিয়ে আপনার মুখ ঢাকুন এবং আপনার শিশুর সাথে কথা বলুন। আপনি নিজেকে দেখানোর পর আপনার কন্ঠস্বর কোথায় থেকে আসছে সে সেটা খুঁজে বের করার চেষ্টা করবে। এটা বাচ্চাদের সাথে বন্ধন তৈরি করার গুরুত্বপূর্ণ কার্যকলাপ।
  • তার সাথে নাচুন : আপনার বাচ্চাকে কোলে নিন এবং সন্তানের সাথে আনন্দের সময় কাটানোর জন্য কোনো গানের তালে দুলুন।
  • তাকে গল্প পড়ে শোনান : আপনার শিশুকে গল্প পড়ানোর বয়সের কোন নিম্নসীমা নেই। প্রতিবারই যখন আপনি পড়বেন, আপনার শিশুর সাথে তার পেটে সুড়সুড়ি দিয়ে, তার পায়ের আঙ্গুল স্পর্শ, ইত্যাদি করুন এবং সে কী প্রতিক্রিয়া দেয় লক্ষ্য করুন।

 

খাওয়ানো

 

শিশুকে খাওয়ানোর সাধারণ নিয়মটি হল যখনই আপনার শিশু ক্ষুধার্ত হবে তখনই তাকে খাওয়ানো। আপনার শিশুর খিদের চাহিদা মেটানোর চেষ্টা করুন এবং সেই অনুযায়ী তাকে খাওয়ান। স্তন্যপান করে এমন শিশুকে 24 ঘণ্টার মধ্যে অন্তত 8 থেকে 12 বার খাওয়াতে হবে এবং ছয় থেকে আটটি ভিজা ডায়াপার পাল্টাতে হবে। যদি আপনি আপনার শিশুকে ফরমূলা খাওয়ান, তবুও এটি সুপারিশযোগ্য, যে আপনার শিশুর খিদের প্রকৃতি অনুসরণ করুন এবং প্রতি দুই বা তিন ঘন্টা অন্তর তাকে খাওয়ান।

 

ঘুমানো

নবজাতকরা তাদের বেশিরভাগ সময় ঘুমিয়ে কাটায়। তাদের প্রতিদিন 17 থেকে 18 ঘণ্টা পর্যন্ত ঘুমানো খুবই স্বাভাবিক। যাইহোক, এই ঘুম সারাদিন জুড়ে বিক্ষিপ্তভাবে হয়। প্রাপ্তবয়স্কদের থেকে নবজাতকদের একটি ভিন্ন ঘুমের প্রকৃতি থাকে। তাদের ঘুমের মাত্র 20% গভীর এবং ভাল ঘুম। অন্য সময়টুকু, তারা সাধারণত ঘুমের মধ্যে প্রবেশ করে এবং আবার বেরিয়ে আসে।

নবজাতকের নিয়মিত পরীক্ষা

নবজাতকদের উপর সঞ্চালিত নিয়মিত পরীক্ষাগুলির মধ্যে কয়েকটি হল :

 

  • এ্যাপগার স্কোরস্ – কোনো বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন কিনা তা নির্ধারণ করতে জন্মের পরে অবিলম্বে শিশুর শারীরিক বৈশিষ্ট্য পরীক্ষা করা হয়। পরবর্তী 6 ঘন্টার জন্য তাপমাত্রা এবং অত্যাবশ্যক লক্ষণগুলি যত্নসহকারে পর্যবেক্ষণ করা হয়।
  • শারীরিক পরীক্ষা – জন্মের প্রথম 24 ঘণ্টার মধ্যে, আপনার শিশুর শ্বাস, হৃদস্পন্দন এবং মলত্যাগ এবং প্রস্রাব করার ক্ষমতা পরীক্ষা করা হয়।
    মাপ – আপনার নবজাতকের ওজন, দৈর্ঘ্য এবং মাথার পরিধি পরিমাপ করা হয়।
  • অ্যান্টিবায়োটিক চোখের ড্রপ জন্ম পথের ব্যাকটেরিয়ার কারণে হওয়া কোনও চোখের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে তাকে অ্যান্টিবায়োটিক চোখের ড্রপ দেওয়া হতে পারে।
  • স্ক্রীনিং পরীক্ষা – শ্রবণ এবং ফেনাইলকেটোনিউরিয়ার (একটি অবস্থা যা বিপাককে প্রভাবিত করে এবং শিশুর মস্তিষ্কের ক্ষতি করে) পরীক্ষা পরিচালিত হয়।
  • ইনজেকশন – কিছু রোগ প্রতিরোধক, যেমন হেপাটাইটিস বি এর সাথে ভিটামিন কে–র প্রতিরোধক দেওয়া হতে পারে। পরবর্তী সপ্তাহগুলিতে, আপনার ডাক্তার আপনাকে আপনার শিশুর ওজন, দৈর্ঘ্য এবং মাথার পরিধি পরিমাপ করতে এবং তার আগের পরিমাপের সাথে তুলনা করার জন্য বলতে পারেন। সে সঠিকভাবে বাড়ছে কিনা এটা তা যথাযথভাবে নির্ধারণ করবে।

 

মাতাপিতার জন্য পরামর্শ

আপনার নবজাতকের যত্ন নেওয়া আপনার দায়িত্ব এবং আপনার সন্তানের যত্ন নেওয়ার জন্য আপনার আগে থেকে যথেষ্ট প্রস্তুত থাকা গুরুত্বপূর্ণ। এখানে কিছু পরামর্শ রয়েছে যা আপনি মনে রাখতে পারেন।

 

  • আপনার শিশুর নিয়মিত চেক–আপের জন্য ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান।
  • আপনার শিশুকে একটি চাপ মুক্ত পরিবেশ প্রদান করুন। নিশ্চিত করুন, আপনার শিশুর ঘরটি যেন পরিচ্ছন্ন থাকে এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ আলোকিত থাকে।
  • দূষণ এবং ব্যাকটেরিয়ার মত ক্ষতিকারক সংস্পর্শ থেকে আপনার শিশুকে দূরে রাখুন।
    নিজের অতিরিক্ত চাপ এড়ানোর জন্য পরিবারের থেকে সাহায্য নিন।
  • ভাল করে ঘুমোন। ঘুমের বঞ্চনা আপনার এবং আপনার শিশুর উভয়েরই যত্ন নেওয়ার ক্ষেত্রে বড় বাধা হতে পারে। নতুন মায়েদের পর্যাপ্ত বিশ্রামের জন্য সময় বের করে ঘুমোতে হবে।

 

আপনার নবজাতকের যত্ন নেওয়া আপনাকে যতটা পরিপূর্ণ করে ঠিক ততটাই কঠিন হতে পারে। আপনার শিশুকে যদি নিয়মিত খাওয়ানো হয়, পর্যাপ্ত ঘুমোয় এবং তার যদি নিয়মিত পেট পরিস্কার হয়, তাহলে আপনার বাচ্চার বিকাশ এবং বৃদ্ধি নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই। যাইহোক, যদি আপনি উদ্বেগের কোনো কারণ খুঁজে পান তবে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে এবং সাহায্য চাইতে দ্বিধা করবেন না।

 

সূত্র: উইকিপিডিয়া।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com