রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৯:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
টাংগাইল বন বিভাগের দোখলা সদর বন বীটে সুফল প্রকল্পে হরিলুট আগ্রাবাদ ফরেস্ট কলোনী বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হলেন মোজাম্মেল হক শাহ চৌধুরী ফৌজদারহাট বিট কাম চেক স্টেশন এর নির্মানাধীন অফিসের চলমান কাজ পরিদর্শন নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করায় দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ ২০৪১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকবে: শেখ সেলিম সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের করমজল ইকোট্যুরিজম কেন্দ্র চলছে সীমাহীন অনিয়ম এলজিইডির কুমিল্লা জেলা প্রকল্পের পিডি শরীফ হোসেনের অনিয়ম যুবলীগে পদ পেতে উপঢৌকন দিতে হবে না: পরশ নির্বাচন যুদ্ধক্ষেত্র নয়, পেশি শক্তির মানসিকতা পরিহার করতে হবে: সিইসি যুদ্ধ না, আমরা শান্তি চাই : প্রধানমন্ত্রী

পৃথিবীতে কোনো স্বৈরশাসক টিকে থাকতে পারেনি, আ’লীগও পারবে না : ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১০৮ পাঠক পড়েছে

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, পৃথিবীতে কোনো স্বৈরশাসক, একনায়ক, ফ্যাসিস্ট শাসক টিকে থাকতে পারেনি। জনতার উত্তাল রোষের মধ্যে তাদের পরাজয় বরণ করতে হয়েছে। তখন আর তাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি। এই আওয়ামী সরকারও টিকে থাকতে পারবে না। তাদের খুঁজ পাওয়া যাবে না। তাই আমি সরকারকে বলবো এখনো সময় আছে, দেয়ালের লিখনিগুলো পড়ুন। মানুষের মনের ভাষা বুঝতে চেষ্টা করুন। আপনাদের ব্যর্থতার জন্য পদত্যাগ করুন।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আয়োজনে ‘করোনা হেল্প সেন্টারের’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, আপনারা জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে সংবিধান লংঘন করেছেন। সেই অপরাধ থেকে যদি রক্ষা পেতে চান অবিলম্বে পদত্যাগ করুন। একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে জনগণ যেন তার পছন্দের সরকার নির্বাচিত করতে পারে সেই ব্যবস্থা করুন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ওবায়দুল কাদের নেতার কথা বলেন? আরে নেতা তো বাংলাদেশে একজনই, খালেদা জিয়া। তিনি একমাত্র নেত্রী যিনি এই দেশে দীর্ঘ নয় বছর সংগ্রামের মধ্য দিয়ে স্বৈরাচারকে পরাজিত করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এখনও গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করতে গিয়ে তিনি গৃহবন্দি হয়ে আছেন। মিথ্যা মামলায় তাকে বেআইনিভাবে সাজা দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের ইসহাক সরকারসহ সব ছাত্রনেতা, যুবনেতার উপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়েছে। থানায় নিয়ে গিয়ে তাদের পায়ে গুলি করে পঙ্গু করে দেওয়া হয়েছে। আমরা ভুলে যাইনি সেসব কথা। এখনও ঘরে ঘরে গিয়ে পুলিশ হয়রানি করছে। কারণ কি? কারণ বিএনপি জেগে উঠেছে। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের তত্বাবধায়নে নতুন করে বিএনপিকে সাজানো হচ্ছে, নতুন কমিটি করা হচ্ছে। এতে করে নতুন জোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। নতুন প্রাণের সৃষ্টি হয়েছে। এজন্য তাদের মধ্যে ভয় সৃষ্টি হয়েছে। তারা ভয় পেয়েছে, ভয়ে কাঁপছে। তাই তারা বিএনপির উপর আবার আক্রমণ শুরু করেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, করোনার শুরু থেকে আমরা আমাদের দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে ত্রাণ দিয়ে আসছি। কিন্তু যারা আজকে অস্ত্র দেখিয়ে জোর করে ক্ষমতা দখল করে বসে আছে তারা করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি, ডেঙ্গুকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি। প্রকৃতপক্ষে জনগণের সমস্যা সমাধানে এই সরকারের কোনো আগ্রহ নেই। সরকার সব ক্ষেত্রে কি রকম তেলেসমতি কাণ্ড ঘটিয়েছে তা আপনার নিজ চোখে দেখেছেন।

তিনি বলেন, একজন স্বাস্থ্যমন্ত্রী আছেন যার প্রতিটি কথা মিথ্যা। তারা করোনা মোকাবিলা করতে গিয়ে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন। শুধু করোনা নয়, গোটা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে ভেঙে ফেলেছে। এখন আপনারা কেউ খুব অসুস্থ হয়ে হঠাৎ ইমার্জেন্সিতে গেলে সেখানে কোনো চিকিৎসা পাবেন না।

মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশে এখন স্বাস্থ্য বিভাগ সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে। শুধু স্বাস্থ্য খাতে নয়, দেশের প্রতিটা সেক্টরে চরম অরাজকতা, দুর্নীতি ও নৈরাজ্য বিরাজ করছে। কারণ যারা এখন দেশ চালাচ্ছে তারা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হয়নি। জনগণ তাদের দেশ চালানোর দায়িত্ব দেয়নি। তাই তাদের কোনো জবাবদিহিতা নেই। বাংলাদেশকে একটি অকার্যকর ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চলছে। এর হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে এই ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটাতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করে আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
© All rights reserved © 2019-2020 । দৈনিক আজকের সংবাদ
Design and Developed by ThemesBazar.Com
SheraWeb.Com_2580