মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১১:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
টাংগাইল বন বিভাগের দোখলা সদর বন বীটে সুফল প্রকল্পে হরিলুট আগ্রাবাদ ফরেস্ট কলোনী বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হলেন মোজাম্মেল হক শাহ চৌধুরী ফৌজদারহাট বিট কাম চেক স্টেশন এর নির্মানাধীন অফিসের চলমান কাজ পরিদর্শন নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করায় দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ ২০৪১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকবে: শেখ সেলিম সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের করমজল ইকোট্যুরিজম কেন্দ্র চলছে সীমাহীন অনিয়ম এলজিইডির কুমিল্লা জেলা প্রকল্পের পিডি শরীফ হোসেনের অনিয়ম যুবলীগে পদ পেতে উপঢৌকন দিতে হবে না: পরশ নির্বাচন যুদ্ধক্ষেত্র নয়, পেশি শক্তির মানসিকতা পরিহার করতে হবে: সিইসি যুদ্ধ না, আমরা শান্তি চাই : প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর ৫ খুনির রায় কার্যকর না করা পর্যন্ত জনগণ ক্ষান্ত হবে না : আইনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২১
  • ৬৭ পাঠক পড়েছে

সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর বাকি পাঁচ খুনিকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা চলছে উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, আপনারা নিশ্চিত থাকেন, যতক্ষণ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর পাঁচ খুনিকে দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করা না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ও দেশের জনগণ ক্ষান্ত হবে না।

রবিবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় ঢাকা জেলা রেজিস্ট্রিশন বিভাগের ভবনে ‘বঙ্গবন্ধু গ্যালারি’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আইনমন্ত্রী ফিতা কেটে ‘বঙ্গবন্ধু গ্যালারি’ উদ্বোধন করেন। এরপর দোয়া মাহফিল করা হয়। পরে ভবন প্রাঙ্গণে তিনি একটি হরতকির চারা রোপণ করেন তিনি।

আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডটি আমাদের হৃদয়কে ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছে। আমাদের কাছ থেকে বাঙালির জাতির পিতা ও মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে। দুঃখের বিষয় হলো এ দেশেই একটি কালো আইন করা হয়েছিল।

যে আইনের মাধ্যমে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার করা যাবে না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কালো আইন বাতিল করার পদক্ষেপ নিয়েছেন এবং বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার সম্পূর্ণ করেছেন।

তিনি বলেন, উচ্চ আদালত থেকেও রায় পেয়েছি। অনেকাংশে রায় কার্যকর করা হয়েছে। তবে পাঁচ খুনি এখনও দেশের বাইরে পালিয়ে আছে। তাদের ফিরিয়ে আনতে প্রচেষ্টা চলছে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর পরে অনেকেই বাংলাদেশকে শাসন করেছেন। তারা সব সময় চেয়েছেন দেশকে একটা তলাবিহীন ঝুড়ি ও ভিক্ষুকের দেশে পরিণত করতে। কিন্তু নেত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ পদক্ষেপের কারণে আজ বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত হয়েছে।

বাংলাদেশের এই অগ্রযাত্রাকে ইনশাল্লাহ কেউ দমিয়ে রাখতে পারবে না। বঙ্গবন্ধুর সেই কথাই সত্য হবে- বাঙালিকে দাবায়ে রাখতে পারবা না।

আইনমন্ত্রী বলেন, এ ষড়যন্ত্রের সম্মুখে যারা খুনি হিসেবে ছিলেন, তাদের বিচার আমরা করেছি। কিন্তু এ খুনের ঘটনার নেপথ্যে অনেক ষড়যন্ত্র ছিল, অনেকে জড়িত ছিল। এ হত্যাকাণ্ডের নেপথ্য ষড়যন্ত্রকারী কারা? কুশীলব কারা? তাদের কেউও চিহ্নিত করতে হবে বলেও জোর দাবি জানান তিনি।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে একটি নিরপেক্ষ কমিশন গঠন করা হবে। দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গকে ওই কমিশনে রাখা হবে।

এ কমিশনের কাজ হবে, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের নেপথ্যে যে ষড়যন্ত্রকারী ও কুশীলবরা রয়েছে তাদেরসহ জিয়াউর রহমানকে চিহ্নিত করে, সবার ন্যক্কারজনক কার্যক্রম ও প্রমাণসহ তা জনসম্মুখে প্রকাশ করা হবে।

এ সময় ঢাকা জেলা রেজিস্ট্রেশন ভবনের সব কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তরুণ প্রজন্মের উদ্দেশ্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুযায়ী আমাদের চলতে হবে। ব্যক্তি বঙ্গবন্ধু কেমন ছিলেন সে বিষয়টি সবাইকে ধারণ করতে হবে। বঙ্গবন্ধু এমন এক মানুষ ছিলেন যার মধ্যে কোনো অহংকার ছিল না। খুব সাদামাটা একজন মানুষ ছিলেন তিনি।

এত বড় মাপের লোক, এত বড় মহানায়ক বাংলাদেশের সব মানুষের ভালোবাসার পাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খুব সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। নতুন প্রজন্মকে আহ্বান জানাবো বঙ্গবন্ধুর ছবি দেখে ও জেনে তার নিরহংকার জীবনযাপন, সাদামাটা জীবনযাপন নিজেদের মধ্যে ধারণ করুন।

 

 

 

নিউজটি শেয়ার করে আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
© All rights reserved © 2019-2020 । দৈনিক আজকের সংবাদ
Design and Developed by ThemesBazar.Com
SheraWeb.Com_2580