শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
টাংগাইল বন বিভাগের দোখলা সদর বন বীটে সুফল প্রকল্পে হরিলুট আগ্রাবাদ ফরেস্ট কলোনী বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হলেন মোজাম্মেল হক শাহ চৌধুরী ফৌজদারহাট বিট কাম চেক স্টেশন এর নির্মানাধীন অফিসের চলমান কাজ পরিদর্শন নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করায় দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ ২০৪১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকবে: শেখ সেলিম সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের করমজল ইকোট্যুরিজম কেন্দ্র চলছে সীমাহীন অনিয়ম এলজিইডির কুমিল্লা জেলা প্রকল্পের পিডি শরীফ হোসেনের অনিয়ম যুবলীগে পদ পেতে উপঢৌকন দিতে হবে না: পরশ নির্বাচন যুদ্ধক্ষেত্র নয়, পেশি শক্তির মানসিকতা পরিহার করতে হবে: সিইসি যুদ্ধ না, আমরা শান্তি চাই : প্রধানমন্ত্রী

সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ছাত্রলীগের কালো পতাকা মিছিল

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ১৮ আগস্ট, ২০২১
  • ৭৪ পাঠক পড়েছে

২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের প্রত্যক্ষ মদদে সারা দেশে একযোগে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে কালো পতাকা মিছিল ও এক মিনিট নীরবতা কর্মসূচি করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বুধবার (১৮ আগস্ট) সকালে ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে এই মিছিল বের করেন সংগঠনের হাজার দুয়েক নেতাকর্মী।

মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে এসে শেষ হয়। এ সময় একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় বলেন, ২০০১ সালে জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশের অভ্যন্তরে বিরোধী রাজনৈতিক দল তথা অসাম্প্রদায়িক দল গোষ্ঠী ও ব্যক্তির ওপর বড় ধরনের নির্যাতন, শারীরিকভাবে উৎখাত এবং এলাকা ও দেশ থেকে বিতাড়নের যে অভিযান চলছিল সেটির মূল লক্ষ্য ছিল দেশকে সাম্প্রদায়িক জঙ্গিবাদী ও তালেবানি রাষ্ট্রে পরিণত করা। ক্ষমতায় আসার পর জামায়াতে ইসলামীর সমর্থনে জেএমবি দেশের সর্বত্র তাদের শক্তির মহড়া একের পর এক প্রদান করে। এর চূড়ান্ত মহড়া হয়েছিল ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট এবং ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট।

তিনি বলেন, আগস্ট মাসটি তাদের পছন্দ ও আদর্শেরও বটে! এই মাসের ১৪ তারিখ পাকিস্তান দিবস, ৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের মৌলিক পরিবর্তন ঘটিয়ে ৪৭-এর দ্বিজাতিতত্ত্বের ভাবাদর্শের রাষ্ট্র ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়ার সুযোগ ঘটেছিল। সে কারণেই ২১ আগস্ট এবং ১৭ আগস্ট সংঘটিত করার পেছনের নেপথ্য শক্তি জেএমবিকে সরাসরি ব্যবহার করে বিএনপি-জামায়াত। এই জঘন্য অপরাধের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এখন সময়ের দাবি।

সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্টে একযোগে ৬৩ জেলায় তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় ৪৩৪টি স্থানে সিরিজ বোমা হামলার মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি তালেবানী রাষ্ট্র বানানোর পরিকল্পনা করেছিল। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সেই সিরিজ বোমা হামলার তীব্র নিন্দা ও বোমা হামলার পরিকল্পনাকারীদের ফাঁসির রায় কার্যকরের দাবি জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মাটিতে জঙ্গিদের কোনো ঠাঁই নেই। সমস্ত জঙ্গিকে খুঁজে বের করে এ দেশের মাটি থেকে শিকড়সহ উপড়ে ফেলতে হবে। এ সময় তিনি জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা পরিহার করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান।

লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ২০০৫ সালে ১৭ আগস্ট তৎকালীন বিএনপি জামায়াত জোট সরকারে প্রত্যক্ষ মদদে সারা দেশে জঙ্গিবাদী গোষ্ঠীর সিরিজ বোমা হামলা হয়েছিল। তারা এই দেশকে জঙ্গি রাষ্ট্রতে পরিণত করতে চেয়েছিল।

এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন সহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয়, হল ও বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

 

নিউজটি শেয়ার করে আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
© All rights reserved © 2019-2020 । দৈনিক আজকের সংবাদ
Design and Developed by ThemesBazar.Com
SheraWeb.Com_2580